Tuesday, May 1, 2018

উপনিবেশ বিরোধী চর্চা৮৮ - ঔপনিবেশিকতাবাদ এবং তার জ্ঞানচর্চার আঙ্গিক - সাম্রাজ্যের মন ও মান ।। বারনার্ড কোহন

অধ্যায় ৫
বস্ত্র, পরিধেয় এবং উপনিবেশিকতাবাদঃ উনবিংশ শতকের ভারত
ওয়িয়েন্টালাইজিং ইন্ডিয়া
রাজকুমার এবং তার সাঙ্গপাঙ্গরা বম্বেতে নেমে ভারতজুড়ে ঘোরাফেরা করলেন। শ্রীলঙ্কা থেকে মাদ্রাজ এলেন এবং সব শেষে কলকাতা এলেন ১৮৭৬ সালে। সারা মাস জুড়ে চলল হইহুল্লোড়, নাচ গান বাজনা সকাল থেকে রাত পর্যন্ত নানান ধরণের খাওয়াদাওয়া শেষ হল কিছু মানুষকে স্টার অব ইন্ডিয়া নামক উপাধি দেওয়ার একটি অনুষ্ঠানে। এই ভ্রমণ ইংলন্ডে খুব বড় করে প্রচারিত হতে থাকল। দ্য গ্রাফিক এবং দ্য ইলাস্ট্রেটেড লন্ডন উইকলির আঁকিয়েরা প্রত্যেক দিনের, প্রত্যেকটি অনুষ্ঠানের ছবি এঁকে লন্ডনের পাঠকদের গোগ্রাসে গেলার জন্য পাঠাতে থাকলেন। তাঁদের আঁকায় তারা বারবার ফুটিয়ে তুললেন এক্সটিক ভারতীয়দের জীবনযাত্রা, কিভাবে বন্য নাগা সম্প্রদায়ের পুরুষ মহিলা নাচিয়েরা এসে রাজকুমারকে এবং ব্রিটিশ হাইসোসাইটির অভিজাতদের তাদের উদ্ভট বর্বর নাচ দেখেয়ে প্রীত করলেন ইত্যাদি ঘটনা। রাজকুমারকে নাচে অংশ নিতে হল – অষ্টাদশ শতকে ভারতের যুবতীদের নিয়ে নবাবদের নাচের জনপ্রিয় অনুষ্ঠান। যুবতী নাচিয়েদের বর্ণময় পোষাক এবং নাচের আঙ্গিক ভিক্টোরিয়ার কথা যেন মনে পড়িয়ে দেয়।
তবে রাজকুমারের ভারত ভ্রমণে কেন্দ্রস্থলে ছিলেন কিন্তু ভারতের রাজা রাজড়ারা। তাদের সম্পদ প্রদর্শনে কোন কার্পণ্য ছিল না। যদিও সাংবাদিকদের কলম বা আঁকিয়েদের তুলি কোনটাই বিপুল বৈচিত্রের এবং রঙের কাপড়, নানান ধরণের রত্ন্রারাজি আর পরিধেয় গয়না কোনটাই ঠিকমত উপস্থাপন করতে পারে নি। রাজাদের একমাত্র উদ্দেশ্য ছিল ব্রিটিশ রানীর জৈষ্ঠ সন্তানকে তাদের জাঁকজমক দেখেয়ে প্রভাবিত করে অনুচ্চারে বলা যে তাঁরা তার মায়ের সাম্রাজ্য রক্ষা করতে বদ্ধ পরিকর।
যেখানেই প্রিন্স ওব ওয়েলস গেলেন, সেখানেই তিনি তার মায়ের প্রতি আভূমি প্রণত সাম্রাজ্যের বন্ধুদের থেকে বিপুল সম্মান, উপহারের ডালি আর অভ্যর্থনা পেলেন। রাজারা একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী রাজাদের রত্ন, আঁকা, প্রাচীন শস্ত্র, জীবিত পশু, সোনার জরির কাজ করা নানান ধরণের বস্ত্র এবং অন্যান্য কারিগরির মূল্যে, ঔজ্জ্বল্যের ছটায় সেগুলোর উদ্ভাবনীকুশলতার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে রাজকুমারকে উপহার দিয়ে ধন্য হতে চাইলেন। ছয়মাস ধরে ভারত ভ্রমণে তিনি যা উপহার পেলেন, সেগুলি বিশাল বড় একটা সেনাবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজ সেরাপিজএ করে বয়ে নিয়ে যেতে হল। লন্ডনে ফেরার পরে তার উপহারগুলি লন্ডনের ভ্রাম্যমান প্রদর্শনীর মত হয়ে দাঁড়াল এবং শেষ পর্যন্ত সেগুলি লন্ডনের ল্যাম্বেথ প্যালেসের প্রায়-মিউজিয়ামে ঠাঁই পেল। তার উপহারের প্রতিউপহারে রাজকুমার দিয়েছিলেন ম্যাক্সমুলারের ঋগ্বেদের অনুবাদ।

শুধু যে রাজারাই তাদের বিশেষ উপহার দিয়ে এবং সম্পদ প্রদর্শন করে রাজকুমারের প্রীতি সম্পাদন করেছিলেন তাই নয়, তাদের সেনাবাহিনীও ব্রিটিশদের চোখ টেনেছিল। দ্য গ্রাফিকের সম্পাদক পাঠকদের এই মিলিটারি ফসিলের ছবি আরর বর্ণনা দিয়ে ব্যাপক আমোদ দিয়েছিলেন – ওয়ান অব দ্য চিফ ফিচার্স অব মহারাজা অব কাশ্মীরস রিসেপশন অব দ্য প্রিন্স অব ওয়েলস ওয়াজ দ্য ওয়ান্ডারফুললি হেটারোজিনিয়াস ক্যারেকটার অব দ্য ট্রুপস হু লাইনড ইন দ্য রুট ফ্রম রিভার টু দ্য প্যালেস। নেভার অন রেকর্ড হ্যাজ সাচ আ মিসেলেনিয়াস আর্মি বিন কালেক্টেড টুগেদার। দ্য ট্রুপস ওর ইউনিফর্মস অব অল কান্ট্রিজ এন্ড অল এজেস, এন্ড ক্যারিড এজ মেনি ডিফারেন্ট ওয়েপনস, রেঞ্জিং ফ্রম চেইন আর্মার এন্ড স্যারাসেনিক জ্যাভেলিনস টু দ্য স্কার্লেট ইউনিফর্মস এন্ড মাস্কেট অব ব্রিটিশ সোলজার্স হাফ আ সেঞ্চুরই এগো, দ্য ১২থ এন্ড দ্য ১৯থ সেঞ্চুরিজ বিইং দাস, এজ আওয়ার আর্টিস্টস রিমার্ক্স, ফেস টু ফেস। দেয়ার ওয়ার ট্রুপস ইনভ্যারিয়েবল নেটিভ কস্টিউম, টারবান্ড এন্ড ক্যারিং ব্লান্ডারবাসেস অর ফ্লিন্ট-এন্ড-স্টিল মাস্কেটস; নেক্সট টু দেম উড বি আ রেড কোটেড কোম্পানি, উইথ হোয়াইট, ব্লু, অর ব্ল্যাক নিকারবকার্স এন্ড স্ট্রাইপড উর্স্টেড স্টকিংস; দেন উড কাম আ ডিটাচমেন্ট ইন চেইন মেল ব্রেস্টপ্লেটস এন্ড স্টিল ক্যাপস উইথ হাই টাফটস; হোয়াইল আদার্স এগেইন ওর ব্রাস হেলমেটস এন্ড অয়ার ক্ল্যাড ইন ব্রাস ব্রেস্ট এন্ড ব্যাক-প্লেটস, নট আনলাইক আওয়ার ঔন হাউসহোল্ড ক্যাভালরি। ওয়ান কর্পোরাল পার্টিকুলারলি এট্রাকটেড আওয়ার আর্টিস্টস এটেনশন, বিইং ক্ল্যাড ইন আ নিউ টিউনিক অব ক্লথ, অন হুইচ দ্য মার্ক ‘সুপারফাইন’ হ্যাড বিন লেফট, আ ব্যাজ অব ডিস্টিংশন অব হুইচ দ্য উইয়ারার এপিয়ার্ড হাইলি প্রাউড। হি বোর আ ওল্ড ট্রিগার গান, উইথ আ বেয়নেট উইথ আ ব্রড লিভড ব্লেড। নট উইথস্ট্যান্ডিং দ্য সেমি-ইওরোপিয়ান ক্লথিং এন্ড আর্মামেন্ট অব মেনি অব দ্য ট্রুপস, হাউএভার, ভেরি লিটল অব ইওরোপিয়ান ডিসিপ্লিন, অর ড্রিল, এপারেন্টলি একজিস্টেড, এন্ড আওয়ার স্কেচ অব ‘চার্জ!’ উইল গিভ আন আইডিয়া অব দ্য হেল্টার স্কেটার রাক – সো ক্যারেক্টারিস্টিক অব ইস্টার্ন ওয়ারফেয়ার  - উইথ হুইচ আ স্কোয়ার্ড্রন অব ক্যাভালরি ওবেইড দ্য ওয়ার্ড কমান্ড। আওয়ার আর্টিস্ট রাইটসঃ দিস রেজিমেন্ট ওর আ গ্রিন ইউনিফর্ম উইথ রেড ফেসিংস – সাম ওয়ার শোড এন্ড আদার্স বেয়ারফুট – দেয়ার ট্রাউজার্স ওয়ার ফিফড আপ টু দেয়ার নিজ, হোয়াইল দেয়ার স্লিভস ওয়ার এক্সিডিংলি লেংথি। এজ ফর দ্য হরসেস, দে হ্যাড রোপ অব ব্রিডলস, এন্ড এপিয়ারেন্স ওয়ার ভেরিটাবল ডিসেন্ডেন্ডস অব রোজিন্যান্টস।
Post a Comment