Saturday, September 21, 2013

প্রাচীন ভারতে কারবুরাইজেসন৩, curburaizeson in encient india3

আগরবাল এবং অন্যান্যরা বিভিন্ন প্রত্নতাত্বিক উৎখনন এলাকায় যেমন কর্নাটকের কোমারানহাল্লি এবং তাডাকানহাল্লি(১২০০-১০০০ খৃস্টপূর্বাব্দ), হালাসখেড়া(৭০০খৃস্টপূর্বাব্দ থেকে ৭০০ খ্রিস্টাব্দ), শ্রীংগ্বেরাপুরা(২৫০ খৃস্টপূর্বাব্দ থেকে ২০০ খ্রিস্টাব্দ), ভরদ্বাজ আশ্রম(৩০০ খৃস্টপূর্বাব্দ থেকে ৬০০ খ্রিস্টাব্দ), জযমু(৬০০খৃস্টপূর্বাব্দ থেকে ৬০০ খ্রিস্টাব্দ) এবং উত্তরপ্রদেশের কৌসম্বী(পিজিডব্লিউ - ৫০০খ্রিস্টাব্দ) পাওয়া লোহার টুকরোর পরীক্ষা প্রমাণ করে এই সময়ে ভারতের ধাতুবিদেরা ল্যামিনেসন প্রক্রিয়া জানত এবং সেটি বিশদভাবে প্রয়োগ করেছিল। এই এলাকায় নানান ধরণের গৃহস্থালির জিনিসপত্র, ধার দেওয়ার যন্ত্র, পেরেক, ছুরি, বর্শা, বর্শা ডগা ইত্যাদি পাওয়া গিয়েছে। লোহা যুগে (১০০০খৃস্টপূর্বাব্দ)র শুরু থেকেই এগুলি ধাতুর তৈরি শুধু এগুলির কোরে কিছু রেমানেন্ট মেটাল রয়েছেএগুলি তৈরি হয়েছে একসঙ্গে কারবুরাইজ়ড এবং আনকার্বুরাজ়ড লোহা পিটিয়েই। একটি কারবুরাইজ়ড অন্যটি নয়। সাধারণ। এভাবে কারবুরাইজ়ড এবং আনকার্বুরাজ়ড একটার পর একটা লোহা রেখে পিটিয়ে একটি লোহার পাত তৈরি হয়। এইভাবেই কারবুরাইজ়ড লোহা বা কার্বন সংকর তৈরি করা হত। এতে সময় বাঁচত, কাঁচামাল সঞ্চয় হত এবং ইচ্ছে অনুযায়ী লম্বা এবং পুরু লোহার পাত তৈরি করা যেত।
মেগালিথিক প্রত্নতাত্বিক ক্ষেত্র কোমারনহাল্লিতে যে সব লোহার দ্রব্য পাওয়া গিয়েছে সবগুলিই অতিরিক্ত জং ধরা। বর্শার ফলকে ০.২-০.৩ শতাংশ কার্বনের মিশ্রণ পাওয়া গিয়েছে, আর যেগুলিয় কার্বন ছাড়া স্তর সেখানে কার্বনের উপস্থিতি -০.০৫ শতাংশ। কারবুরাইজ়ড এবং আনকার্বুরাজ়ড স্তরের গড় মাইক্রো-হার্ডনেস ১২৫ থেকে ১০০। শক্তিশালী অণুবীক্ষণ ব্যবহার করে রেলিক কার্বাইডেরও অস্তিত্ব দেখতে পাওয়া গিয়েছে। আমাদের বর্নিত লোহার দ্রব্যগুলিকে কারবুরাইজ়ড এবং আনকার্বুরাজ়ড স্তর তৈরি করে পিটিয়ে বানানো হয়েছেএটিকে তৈরি করতে টেম্পারিং বা তাপ-পদ্ধতির কোনও নিশানা নেই। তরোয়াল, বর্শা এবং ছুরি ল্যামিনেসন পদ্ধতিতেই তৈরি হয়েছে।
কোমারনহাল্লির কাছে হাল্লুররের সমসাময়িক অন্য একটি মেগালিথিক প্রত্নতাত্বিক ক্ষেত্র টাডাকানহাল্লি।  ১০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দএর সমসাময়িক। টাডাকানহাল্লির দ্রব্যগুলি ল্যামিনেসন পদ্ধতিতে তৈরি। বর্শা, ছুরি, তরোয়াল, এবং চিজেল নিয়ে গবেষণা হয়েছে। লোহার একটি কুড়ুলে তিনটি কারবুরাইজ়ড এবং চারটি আনকার্বুরাজ়ড স্তর পাওয়া গিয়েছে। যে স্তরটি কালোপানা সেটির কার্বনের উপস্থিতি ০.২-০.৩ শতাংশ যেটি তুলনামুলক পরিস্কারএ সেটিতে লোহার উপস্থিতি ০.০৪-০.০৫ শতাংশ। কালোপানাটি কারবুরাইজ়ড এবং যেটি তুলনামুলক পরিস্কারএ সেটি আনকার্বুরাজ়ড স্তর। এগুলি তৈরিতে দ্রুত ঠাণ্ডা(কোয়েঞ্চ্‌ড) বা গরম (ট্যাম্পার্ড) করার কোনও প্রমাণ পাওয়া যায় নি।
উত্তর প্রদেশের হালাসখেড়া, শ্রীংগ্বেরাপুরা এবং ভরদ্বাজ আশ্রমে পাওয়া হাতিয়ারে ০.২-০.৩ শতাংশ কার্বন মিশ্রণ রয়েছে। দুটি স্তরের মাইক্রো-হার্ডনেস ১২৫-১৩৫ এবং ১০০-১০৫। তাপ প্রযুক্তির কোনও প্রমাণ পাওয়া যায় নি।
�বN � � � '+ �& ্তরে ওয়েল্ডিং পদ্ধতিতে একটির পর একটি এ ধরণের ছোট ছোট ফালি জোড়া হয়। আজকের দিনে একে স্মিথ ওয়েল্ডিং বলে। শেষ স্তরে সমগ্র বস্তুটিকে ইচ্ছে অনুযায়ী আকার দেওয়া যেতে পারে। ক ট ম হেগড়ে অ্যান ইন্ট্রোডাক্সন টু এন্সিয়েন্ট আয়রন মেটালার্জি, ১৯৯১তে বলছেন প্রাচীন ভারতের কর্মকারেরা তাপ দেওয়া এবং দ্রুত ঠাণ্ডা করার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অস্ত্রের ধারের দিকটি শক্ত করার পদ্ধতিটি জানতেন, যদিও তিনি এ ধরনের কোনও দ্রব্য প্রত্নতাত্বিক ক্ষেত্র থেকে উদ্ধার করতে পারেন নি কেননা সেগুলি ছিল জংএ জরাজীর্ণ।
Post a Comment