Wednesday, July 3, 2013

ব্রিটিশ-পূর্ব বাঙলায় জমিদার আর জমিদারি৮ - পলাশি পরবর্তী সময়ের একশালা পরিকল্পনা, Zamindars & Zamindaris(Landlord) of Pre-British Period8 - Zamindari After Palashi - One Year Plan

পাঁচশালা বন্দোবস্ত বিফল হওয়ার ১৭৭৪এ কোম্পানির সুপ্রিম কাউন্সিলএর সদস্য, হেস্টিংসএর চরম শত্রু, ফিলিপ ফ্রান্সিস, ভারতে আসেন অনেকেই কর্নওয়ালিসকে চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের জনকরূপে বর্ণনা করলেও আদতে ফিলিপ ফ্রান্সিসকে বাঙলা সুবায় চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের জনক বলাচলে ১৭৭৬এ কলকাতা কাউন্সিলের কাছে বিশদে রাজস্ব ব্যবস্থার ছক পেশ করেন ফিলিপ রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী হেস্টিংস-বারওয়েল পরিকল্পনাকে বানচাল করতে ফ্রান্সিসএর এই প্রস্তাব ফিলিপের প্রস্তাবের কেন্দ্রে ছিলেন জমিদারেরা তাঁর যুক্তি, জমিদার আদত জমির মালিক শাসক ভূমিরাজস্বের হকদার কিন্তু মালিক নন কেড়ে নেওয়া দেওয়ানির অধিকার তাদের ফিরিয়ে দিতে হবে তিনি বাঙলা সুবায় কোম্পানির রাজস্ব হিসাব কষলেন ৩,১০,৬৪,২৩২টাকা সরকারের প্রয়োজন অনুসারে রাজস্ব কী হবে তাও সরকারকে ঠিক করার পক্ষে মত দেন তবে জমিরাজস্বের বিস্তৃত হস্তবুদ তৈরির বিপক্ষে মত ছিল তার, তিনি বিগত তিন বছরের কর আদায়ের গড় থেকে এই রাজস্ব নির্ধারনের পক্ষে ছিলেন ব্রিটেনে গিয়ে তিনি তার পরিকল্পনার প্রচার চালান ১৭৭৬এর ২২ জানুয়ারি ফ্রান্সিসের পরিকল্পনা বিখ্যাত মিনিটে বিস্তারিত পেশ হয় প্রধাণমন্ত্রী পিট আর বোর্ড আর কন্ট্রোলএর প্রধাণ হেনরি ডান্ডাস তার পরিকল্পনায় বেশ প্রভাবিত হন তাঁর সবকটি প্রস্তাব গৃহীত না হলেও, মোদ্দাপ্রস্তাবগুলি কিন্তু কোম্পানি মেনে নেয় তাই ফ্রান্সিসকে বাঙলার ভূমিব্যবস্থা ধংসের প্রধাণ প্রক্রিয়া চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের অন্যতম কারিগর বলা চলে ১৭৭৬এ হেস্টিংস, ডি এন্ডারসন, চার্লস ক্রফটস, জর্জ বগলকে নিয়ে আমিনি কমিশন গঠণ করেন ২৫ মার্চ আমিনি কমিশন তার সমীক্ষা পেশ করে
ফিলিপ ফ্রান্সিস

১৭৭৭এ বাঙলাদেশে বার্ষিক বন্দোবস্ত নামে একশালা পরিকল্পনা তৈরি হল ঠিক হয় বিগত তিনবছরের গড় রাজস্ব ধরে বার্ষিক রাজস্ব ঠিক হবে, জমিদার রায়তদের খাজনা উল্লেখ করে পাট্টা দেবেন কোনও  ইওরোপিয় বা তার বেনিয়ান কোনে জমিদারি ইজারা নিতে পারবে না প্রতিবছর নতুন লিজের বন্দোবস্ত দেওয়া হবে জমিদার নিজস্ব রাজস্ব দিতে অপারগ হলে, তার জমিদারি একাংশ বিক্রি করে সেই অনাদায়ি মেটাবার ব্যবস্থা হল জমিদারেরা দেবী সিংহ আর গঙ্গাগোবিন্দ সিংহের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেন দিনাজপুর আর রংপুরের জমিদারেরা দেবী সিংহের বিরুদ্ধে অস্ত্রহাতে প্রতিবাদ করলেন সরকারকে সৈন্য পাঠিয়ে এই সংগ্রাম দমন করতে হয় হেস্টিংস ১৭৮১তে বোর্ড অব রেভিনিউ তৈরি করলেন কোম্পানির চারজন বরিষ্ঠ কর্মচারী সদস্য এই বোর্ডের সদস্য হন জেলায় জেলায় আবার নতুন করে কালেক্টরদের কর আদায়ের জন্য পাঠানো হয় গভর্ণর জেনারেল আর কাউন্সিলের নির্দেশ অনুযায়ী কালেক্টরদের কাজ করতে বলা হল আদতে পরোক্ষে কর আদায়ে যে কোনও  সহজ অথবা বাঁকা পদ্ধতি অবলম্বন করতে বলা হল ১৭৮৬তে কমিটি অব রেভিনিউ তুলে বোর্ড অব রেভিনিউ গঠিত হয় সপারিষদ গভর্নর জেনারেল এই জমিদারি আর রাজস্ব সম্পর্কিত সমস্ত বিষয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণের অধিকারী হলেন
Post a Comment