Thursday, June 27, 2013

মেদিনীপুরের নায়েক স্বাধীণতা সংগ্রাম, Freedom Movements of the Nayeks of Medinipur

পলাশির চক্রান্তের পর ক্রমশঃ সোনার বাঙলাকে ছারখার করে দিতে এবং ভারতের ধনীতম এলাকা বাঙলার সম্পদ আর জ্ঞাণ লুঠ করে, শিল্প ধংস করে অযুত পরিমান সম্প ইংলন্ডে নিয়ে যেতে গিয়ে বাঙলার ওপর অবর্ণনীয় অত্যাচার আর লুন্ঠনের কর্মপদ্ধতিতে বাঙলা ছারখার হয়ে যায়, যার অন্যতম উদাহরণ ছিয়াত্তরের মন্বন্তরে ব্রিটিশদের হিসেবেই এককোটির ওপর নির্দোষ মানুষের খুন হয়ে যাওয়া এর পর বাঙলার চিরাচরিত জমিদারদের ওপর নেমেএল কর্নওয়ালিসের চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের খাঁড়া
একে একে ছারখার হয়ে গেল বাঙলার জমিদার আর সাধারণ মানুষও বাঙলার খুন হয়ে যাওয়া মানুষ, লুঠ করা সম্পদ আর জ্ঞাণপূর্ণ সভ্যতার শ্মশানের ওপর রচিত হল ব্রিটেনের নব শিল্পবিপ্লবজনিত সভ্যতা মেদিনীপুর জেলায় জমিদারদের সংখ্যা অনেক বেশি থাকায় এই জেলায় পাইক বরকন্দাজসহ রাজকর্মচারীদের সংখ্যা ছিল অনেক বেশি এ ছাড়াও কোম্পানি আমলে বাঙলার নবাবী সৈন্য বাহিনী ভেঙে দেওয়ায় সেনা দলে কাজ করা বহু মানুষই প্রায় বেকার হয়ে পড়েন লুঠের কাজে মত্ত কোম্পানি এর আগেই জেলির পশ্চিমে জঙ্গল-মহলে পাইপ আর চোয়াড়দের জায়গির-জমিও বাজেয়াপ্ত করে এ ফলে ১৭৯৯তে এই অঞ্চলে ব্যাপক পাইক-চোয়াড় স্বাধীণতা সংগ্রাম গড়ে ওঠে 
১৭৯৯ সালে বগড়ি পরগণার বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে চোয়াড় স্বাধীণতা সংগ্রামের রোষানল জ্বলে উঠেছিল ১৮০৬ সালে বাঙলা লুন্ঠনরত ব্রিটিশ বণিক-শাসকেরা বগড়ির নায়েক অথবা লায়েকদের জায়গীর বাজেয়াপ্ত করলে স্বাধীণতা সংগ্রাম আরও ছড়িয়ে পড়তে থাকে ১৮১৬ পর্যন্ত এই স্বাধীণতা সংগ্রামের আগুণে শাসক সমাজ পুড়তে থাকে
চোয়াড় স্বাধীণতা সংগ্রামের পর বগড়ির নায়ক স্বাধীণতা সংগ্রাম মেদিনীপুর তথা বাঙলার অন্যতম স্মরণীয় ঘটনাক্রম মেদিনীপুর জেলার উত্তরাংশ জুড়ে নায়েকদের স্বাধীণতা সংগ্রামই ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আমলে একের পর এক আছড়ে পড়া আন্দোলনের অন্যতম শৃঙ্খল নায়েক সমাজ চোয়াড়দেরই সমান এক সম্প্রদায় যারা বগড়ির রাজবংশের কাছ থেকে জায়গির পেয়েছিল নায়েক সমাজ সেই জায়গির জমিতে চাষ করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করত আবশ্যিক হলে তারা বগড়ি রাজার অধীনে যুদ্ধকরতে পিছপা হত না ইংরেজ বণিকেরা বাঙলার শাসন ক্ষমতা দখল করে সারা দেশের সঙ্গে মেদিনীপুরের বগড়ি পরগণায়ও অত্যধিক কর দাবি করে রাজা ছত্র সিংহ সেই দাবি না মেনে প্রতিবাদ করলে জমিদারি ছত্র সিংএর হাত থেকে কেড়ে নিয়ে অন্য ব্যক্তির সঙ্গে চুক্তি করার বন্দোবস্ত করে একই সময় বগড়ির জায়গির ভোগকরা নায়েকদেরও তাদের অধিকার থেকে উচ্ছেদ করা হয় নায়েকেদের জমি কেড়ে নেওয়ায় তাদের জীবিকা প্রশ্নচিহ্নের মুখে পড়ে
এমতাবস্থায় নায়েক সর্দার অচল সিংহ নায়েকদের নেতৃত্ব দিয়ে তাদের ক্ষোভকে সংঘবদ্ধরূ প্রদান করেন অচল সিংহ দীর্ঘদিন বগড়ি রাজের অধীনে সেনাবাহিনীর উচ্চপদে কর্মকরেন এবং সেই অভিজ্ঞতায় তিনি নায়েকদের সংঘবদ্ধ করে ছোটছোট সৈন্য বাহিনীতে গড়ে তোলেন নেতার অধীনে নায়েকরা ইংরেজ সৈন্যের মুখোমুখি হওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন গড়বেতার শালবনের মধ্যে নায়েকেরা ঢুকে সমগ্র এলাকায় স্বাধীণতা সংগ্রামের আগুণ জ্বালিয়ে দেয় এই বিদ্রোহে পার্শ্ববর্তী হুগলি অথবী বিষ্ণুপুরও থরথর করে কাঁপতে থাকে ইংরেজরা ওকলি নামক এক লেনাপতির নেতৃত্বে এক বিশাল সৈন্যবাহিনী এউ স্বাধীণতা সংগ্রাম দমন করতে পাঠায় নায়েকেরা দলবদ্ধ নাহয়ে ছোট ছোট দলে বিভক্ত হয়ে জঙ্গলে লুকিয়ে থেকে ইংরেজদের ওপর আক্রমণ শানাত, যুদ্ধশেষে যেন ভোজবাজির মত অদৃশ্য হয়ে যেত যোগেশচন্দ্র বসু তাঁর মেদিনীপুরের ইতিহাসে বলছেন স্বাধীণতা সংগ্রামীদের দমন করিতে অপারগ হইয়া ইংরাজ সেনাপতি একদিন রাত্রিকালে কয়েকটি কামান একত্রিত করিয়া ক্রমাগত গোলাবর্ষণে সমস্ত বনভূমি বিধ্বস্ত করিয়া ফেলিলেন লায়েকদের সম্মুখে ভয়ঙ্কর বিপদ দেখাদিল কামানের গোলাবর্ষণে অবশিষ্ট নায়েকগণ ছিন্নভিন্ন হইয়া গেল ইংরেজ সৈন্যরা সেই রাতেই নায়েকদের ঘাঁটিগুলি ধংস করিয়া ফেলিল পরদিন বৃক্ষশাখায় বনান্তরালে ও নদীতীরে বহুসংখ্যক নায়েক নরনারীকে হত ও আহত, বন্দী করা হইল কিন্তু নায়েকগণের দলপতি অচল সিংহএর কোনও  সন্ধান পাওয়া গেল না ইংরেজ সৈন্যাধক্ষ তাঁহাকে ধরিবার জন্য কিছু সৈন্য বগড়িতে রাখিয়া অবশিষ্ট সৈন্য হুগলী ও মেদিনীপুরের সেনা নিবাসে পাঠাইলেন

অচল সিংহ নতুন করে নায়েকদের সংগঠিত করতে লাগলেন স্বাধীণতা সংগ্রামের আগুন নিভেও নিভলনা গনগনির মাঠথেকে সরে গিয়ে অচল সিংহ দূরের বনে ঘাঁটি গাড়লেন নতুন উদ্যমে গনগনিতে ইংরেজদের াক্রমণ সহ্যকরে পালিয়ে যেতে পেরেছিলেন তাঁদের আবার নতুন করে সাজিয়ে তুললেন স্বাধীণতা সংগ্রামের আগুনে সেঁকে ১৮০৪এ ইংরেজরা ওড়িশা দখল করার পর বহু মানুষ, সেনা আর নানান প্রফেশনের মারাঠি আর রাজপুত নায়েকদের সঙ্গে যোগ দিয়ে তাদের বাহিনীর জোর বাড়য়ে তুলল এই মিলিত বাহিনী অত্যন্ত ক্ষিপ্ত হইয়া ইংরেজাধিকৃত পল্লীসমূহে প্রবেশ করিয়া এবং ধনীদের সর্বস্ব কাড়িয়া লইয়া নিজেদের নষ্ট ঐশ্বর্য পুনরুদ্ধার করিতে লাগিল ইংরেজগন মরিয়া হইয়া ্চল সিংহ এর সন্ধান করিতে লাগিল এই সুযোগে বগড়ীর রাজ্যচ্যুত রাজা ছত্র সিংহ ইংরেজদের হিতসাধন করিয়া প্রষ্ট গৌরব উদ্ধার করিবার মানসে বিবিধ কৌশলে বিশ্বাসঘাতকতাপূর্বক অচল সিংহকে ধৃত করিয়া ইংরেজ সৈন্যাধক্ষের হস্তে সমর্পণ করে ইংরেজগণ নায়েক-বীর অচল সিংহকে গুলি করিয়া হত্যাকরে নায়েক-বীর অচল সিংহ ছত্র সিংহের আচরণে ক্ষুব্ধ হইয়া তাঁহার মস্তকে যে অভিসম্পাত বর্ষণ করিয়াছিলেন তাহা বর্ণ বর্ণে সফল হইয়াছেল  অচল সিংএর মৃত্যুর পর নায়েকরা নতুন নতুনভাবে ইংরেজদের বিরুদ্ধে ক্রমাগত যুদ্ধ চলিয়ে যায় ১৮১৬ সাল পর্যন্ত বিচ্ছিন্নভাবে
Post a Comment