Tuesday, September 14, 2010

শাঁখ শাখার বারোমাস্যা - অলিমিতি

শঙ্খপুরান
শঙ্খের বৈজ্ঞানিক নাম টারবিনেলা পাইরাম(Turbinella pyrum)৷ এটি একটি porcelaneous shell৷ অর্থ এমন একটি কাঠামো, যার ওপরের অংশ শক্ত, উজ্জ্বল আর স্বচ্ছ৷ ভারতীয় উপমহাদেশে এই ধরনের শঙ্খ পাওয়া যায় প্রধাণত ভারত মহাসাগর আর তার আশেপাশের সাগরে৷
শঙ্কুআকার অনুযায়ী শঙ্খকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়, দক্ষিণাবর্তী শঙ্খ আর বামাবর্তী শঙ্খ৷
বাদ্যযন্ত্র হিসাবে শঙ্খের ব্যবহার বেশ পুরোনো৷ বিশেষ করে যুদ্ধে৷ একে শঙ্খনাদ বলাহয়৷
প্রচলিত ভারতীয় আচারে শঙ্খনাদ বন্ধুত্বের দ্যোতক আর শত্রুদের হৃদকম্প স্বরূপ৷
শাঁখ বাজিয়ে পুজো করার রীতি বহুদিনের৷ বর্তমানে শাঁখ বাজিয়ে নানান অধর্মীয় অনুষ্ঠানের, আচারভিত্তিক অনুষ্ঠানেরও সূচনা করা হয়৷
ব্রহ্ম বৈবর্ত পুরাণ অনুসারে শঙ্খে যৌথভাবে দেবী লক্ষ্মী আর ভগবান বিষ্ণুর বাস৷ ফলে পুরাণে শাঁখের সঙ্গে বিষ্ণুদেবের একটি সমীকরণ গড়ে তোলা হয়েছে৷ শাঁখে রাখা কোনো জলে স্নানকরা যেকোনো পবিত্র জলে স্নানের সমান৷ শঙ্খ সদ্ম পুরাণ অনুসারে শ্রীবিষ্ণু এবং গাভীর চিত্র সামনে রেখে স্নান করা দশলক্ষ যজ্ঞের সমান৷ আর বিষ্ণুদেবের চিত্র সামনে রেখে শঙ্খ জল মাথায় দেওয়ার অর্থ গঙ্গাজলে স্নানের পূণ্যর সমান৷
ব্রাহ্মণ্যধর্মের পাশাপাশি বৌদ্ধধর্মেও আটটি মহাপ্রতীক অষ্টমঙ্গলের অন্যতম একটি শঙ্খ৷
শঙ্খ ত্রিবাঙ্কুর রাজের প্রতীক৷ প্রতিবেশী শ্রীলঙ্কার জাফনা রাজের পতাকায় ব্যবহার হয় শঙ্খ৷ বাংলার পাশের রাজ্য ওড়িশার বিজু জনতা দলের নির্বাচনী প্রতীক শঙ্খ৷
শঙ্খ ভগবান বিষ্ণুর অন্যতম প্রতীক৷ ভাগবান বিষ্ণু ছাড়াও মত্স্য, কুর্ম, বরাহ এবং নরসিংহ এই চার অবতারও শঙ্খধারী৷ জগন্নাথদেব বিষ্ণুদেবের অবতার বিশেষ, তাই পুরীর অপর নাম শঙ্খ ক্ষেত্র৷
নেপালের গণ্ডকী নদীতেই একমাত্র পাওয়া যাওয়া শালগ্রাম শিলা ভগবান বিষ্ণুর প্রতীক রূপেও পুজো হয়৷ শঙ্খ, চক্র গদা, পদ্ম লাঞ্ছিত শালগ্রাম শিলা ভগবান কেশবরূপে পুজিত হন৷
পুরাণ অনুসারে শঙ্খ এবং লক্ষ্মী দেবী দুই ভাইবোন, দুজনই শমুদ্র উত্থিত৷
এছাড়াও পুরাণে, বা সাহিত্যে জলজ প্রাণীরূপে শঙ্খ আর নাগেদের এক গোত্রভূক্ত করা হযেছে৷ মহাভারত, হরিবংশ আর ভগবত্ পুরাণ অনুসারে নাগেদের কয়েকটি নাম উল্লেখ করা গেল – শঙ্খ, মহাশঙ্খ, শঙ্খপাল, শঙ্খচূড়৷ শেষ দুটি নাম জাতকের কাহিনীতেও পাওয়া যায়৷
Post a Comment