Wednesday, October 15, 2014

জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়িতে গমীরা আর খন


এক শহুরে সংস্কৃতি উপস্থাপন করছে আর এক সংস্কৃতি, গ্রামআভিকরশিল্পকে। কলকাতার শহুরে অভিজাত প্রসেনিয়াম নাটকের অন্যতম প্রাচীন ঐতিহ্য, জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়িতে ২০ এবং ২১ অক্টোবর, ২০১৪ সোমবার এবং মঙ্গলবার, সন্ধ্যে ৫.৩০এ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দুই দিনাজপুরের দুই প্রখ্যাত লোকআঙ্গিক মুখোশ নৃত্য গমীরা নৃত্য এবং খন গান(আদতে নাটক)। আন্তর্জাতিক মোখা (মুখোশ) শিল্পী দক্ষিণ দিনাজপুরের গুরু মধুমঙ্গল মালাকার নিয়ে আসছেন নিজের হাতে তৈরি মোখা অবলম্বনে গমীরা নৃত্য, যে নৃত্য অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে সারা দিনাজপুর অঞ্চলে বছরভর। উত্তর দিনাজপুরের গুরু গণেশ রবিদাস নিয়ে আসছেন খন গানের লোকসাংবাদিকতার কয়েকশ বছরের রাজবংশী ঐতিহ্য। এই দুটি আঙ্গিককে প্রসেনিয়াম থিয়েটারে উপস্থাপন করতে সাহায্য করেছেন জয়া মিত্র। উতসাহীদের মনে থাকতে পারে প্রায় দু দশক আগে কলকাতার প্রসেনিয়াম মঞ্চে নাচে গানে নতুন আঙ্গিকে দর্শকদের মাতিয়ে দিয়েছিল মাধব মালঞ্চী কইন্যা, ভেঙে দিয়েছিল প্রসেনিয়াম নাটক প্রযোজনার সমস্ত রেকর্ড, সেই প্রসেনিয়ামযোগ্য নাটকটিকে কিছুটা ঢালা হয়েছিল খন নাটকের আঙ্গিকে। ভারত সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রকের সহায়তায় প্রায় ৩০ বছর পর কয়েক শ বছরের গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য বহন করে চলা বঙ্গীয় পারম্পরিক কারু ও বস্ত্র শিল্পী সঙ্ঘের দুই নেতৃ স্থানীয় গুরু, দুই লোক আঙ্গিকের দুই সাংস্কৃতিক প্রকাশভঙ্গীকে এমন এক মঞ্চে নিয়ে আসছেন যে মঞ্চে স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ অভিনয় করে গিয়েছেন। সোমবার অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করবেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক সব্যসাচী বসু রায়চৌধুরী। উপস্থিত থাকবেন গায়ক-বিধায়ক সুখবিলাস বর্মা, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তণ উপাচার্য অধ্যাপক দিলীপ কুমার সিংহ এবং রাজ্য আকাদেমির প্রাক্তন এবং বর্তমান সচিব শিশির কুমার মজুমদার, হৈমন্তী চট্টোপাধ্যায়, উতপল ঝা এবং আরও অনেকে। থাকবে দিনাজপুরের কুনোরের পোড়ামাটি শিল্পের প্রদর্শনী। বাংলার পারম্পরিক সংস্কৃতির জ্ঞানের সন্ধ্যায় আপনাকে স্বাগত।
Post a Comment